জীবনের উদ্দেশ্য কি ? জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত

আমাদের জীবনের উদ্দেশ্য কি ? জীবনের উদ্দেশ্য হল সুখ, সাফল্য, আত্ম-বিকাশ এবং সমাজে কৃতজ্ঞতা সৃষ্টি করা । আসলে এটি হলো আপনার একান্ত মত। এবং এটি একটি আত্ম জিজ্ঞাসা। এই আত্ম জিজ্ঞাসা মানুষকে অনেক উর্ধে নিয়ে জিতে পারেন। জীবনের উদ্দেশ্য অনেক রকম হতে পারে। যার যার মনের চাহিদার উপর ভর করে এটি মনের মধ্যে তৈরী হয়। হয়ত কেউ হতাশায় ভোগে এই উদেশ্য সম্পর্কে প্রশ্ন আসে। আবার কেউ হয়ত আত্ম সচেতন তাই এই প্রশ্ন আসে |

জীবনের উদ্দেশ্য কি

পোস্টসূচীপত্র আসলে অনেক কারণে এই অবস্থায় মানুষ উপনীত হয়। জীবনেই গতিবিধিকে পরিচালনা করার জন্যে এই প্রশ্ন। এটি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত একটি বিষয়। তবে মানুষের জীবনের উদ্দেশ্য কি এইটা ঠিক করতে হলে আগে জীবনের মূল্য কি সেটা উপলব্দি করে হবে। এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে যাওয়ার জন্যে চলুন আরো গভীরে প্রবেশ করি ।

জীবনের মূল্য কি


জীবনের মূল্য কি ? এইটা মানুষের উদেশ্যের উপর ভর করে। জীবন হচ্ছে এমন এক বিষয় যার অনেক মূল্য আবার একদম মূল্যহীন। প্রতিটা মানুষের জীবনের মূল্য প্রতিটা মানুষের চাহিদা আর লক্ষ্য বা উদ্দেশ্যের সাথে মিশে আছে। 


যেমন  বিল গেটস এর জীবন কি আমার সাথে মিলবে? উত্তর হচ্ছে না।  কেননা বিল গেটস এর জীবনের মূল্য অতুলনীয় তা কোনো অর্থ দিয়ে পুরন করা যাবে না। কারণ তারা জগতের জন্যে এমন কিছু সৃষ্টি করে গেছে তা মানুষ কোনোদিন ভুলবে না।  তবে সে ক্ষেত্রে একেকজনের জীবনের মূল্য একেক রকম।  


আবার আমার জীবন বা আপনার জীবন আমাদের প্রিয়জনের মধ্যে বা এ আত্মীয় স্বজনের জন্যে সীমাবদ্ব। কারণ আমরা পৃথিবীর জন্যে বা মানুষের সেবার জন্যে মানুষের প্রয়োজনের জন্যে আমরা কিছু করতে পারি নাই। 


মধ্য কথা হচ্ছে আপনি নিজেকে কিসের জন্যে মূল্যবান করবেন ? কি নিজের জন্যে নাকি মানুষের উপকারের জন্যে। হ্যা যদি আপনার জন্যে যদি আর দশজনের উপকার হয় তাহলে সেটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এভাবেই আমাদের জীবনের মূল্যকে উপলব্দি করতে পারি।  


তবে এইটা বলব আপনার জীবনের মূল্য আপনার উদ্দেশ্য বা লক্ষ্য কে যদি ঠিক করতে পারেন বা সেই অনুপাতে নিজেকে সাজাতে পারেন তাহলে আপনার জীবনের মূল্য দিন দিন বৃদ্বি পাবে।  মনে রাখবেন আপনার পরিশ্রম আপনার অধ্যবসায় অপরের সুখ শান্তি যেন বয়ে আনে। এইটাই হচ্ছে মানুষের জীবনের প্রকৃত মূল্য। 

জীবনের উদ্দেশ্য কি নয় ?


জীবনের উদ্দেশ্য সেটা নয় যে উদ্দেশ্য মানুষকে বিপদগ্রস্ত করে। জীবনের উদ্দেশ্য সেটা নয় যেটা  অপরজনের ক্ষতি সাধন করে। ওপরের সম্পদ চুরি করে নিজেকে প্রতিষ্টিত করা সেটা মানুষের জীবনের উদ্দেশ্য হতে পারে না। 


নিজের বিবেক বিসর্জিত সমস্ত কাজ ই উদ্দেশ্য নয়। কারো অকল্যেন চিন্তার মাধ্যমে যেন আমাদের জীবন অতিবাহিত না হয়। এইটাই উদ্দেশ্য হয় উচিত। 


পক্ষান্তরে আমরা সবাই জানি মানুষ যেমন কর্ম করবেন তিনি সেই কর্মফল ভোগ করবেন। তাহলে কেন অপরের অমঙ্গল চিন্তার মাধ্যমে নিজের জীবনের সুন্দর্যকে আমরা নষ্ট করব ? এইটা জীবনের উদ্দেশ্য নয়। এইভাবে নিজেকে পুঙ্কানুপুঙ্খ ভাবে সুন্দর চিন্তার মাধ্যমে জীবনের উদ্দেশ্য এবং লক্ষ্য টিক করে এগিয়ে যেতে হবে। 

মানব জীবন বলতে কি বোঝায় ?


খাওয়া দাওয়া ঘুরে ফিরা এইগুলিকে কি মানব জীবন বলে ? না। এইগুলিকে মানব জীবন বলে না। মানব জীবন বলতে বুজায় গুছানো পরিমার্জিত ,পরউপকারী ,প্রেম, ধৈর্য গভীর ভালোবাসায় পরিপূর্ণতা কে মানব জীবন বলে। 


আর এই মানব জীবন দিয়ে মানুষ নিজেকে জানতে পারে। কেননা কোনো প্রাণী থেকে শুরু করে সমস্ত জীব মানুষের কাছেই নিরাপদ। তাই মানব জীবনের গুরুত্ব অপরিসীম। এইভাবে ধীরে ধীরে নিজের জীবনের উদ্দেশ্য বা লক্ষ্য কে ঠিক করে এগিয়ে যেতে হবে। 

জীবনের লক্ষ্য নিয়ে কিছু কথা


মানুষের জীবনের লক্ষ্য একেক জনের একেক রকম। জীবনের লক্ষ্যে নিয়ে কিছু কথা ব্যক্তিগত ভাবে বলার চেষ্টা করবো। লক্ষ্য মানে একটি কেন্দ্র। আপনি যা কিছু করেন না কেন যেভাবে চলেন না কেন আপনি অবচেতন মনে হলেও একটি লক্ষ্য বা উদেশ্য বা কোন কেন্দ্রকে তাক করে আছেন। হয়ত বা আপনি সেটা ভালভাবে জানার চেষ্টা করেন নাই ।


জীবনের উদ্দেশ্য কি

যেমন আপনি ঘর থেকে বের হলেন কোনো কারণে বা কোনো কাজে বা আপনি কোনো চাকরিজীবী ,ব্যবসায়ী বা কার সাথে দেখা করাও হতে পারে। এই যে কথা গুলি আপনাকে বলা হয়েছে সেগুলি কিন্তু একেকটা উদ্যেশে বা লক্ষ্য। এখানে ব্যবসা এইটাও লক্ষ্য ,চাকরিতে যাওয়া সেটিও একটি লক্ষ্য এভাবে প্রতিটা মানুষ লক্ষ্য বা উদ্যেশ্য নিয়ে চলে। 


এবার আসি এইগুলি বাদেও অনেকের দৃঢ় অনেক লক্ষ্য বা উদ্যেশ্য থাকে। যা পূরণ করতে অনেক ভাবেই মানুষ মরিয়া হয়ে উঠে। এই মরিয়া বা বেকুলতা এভাবেই মানুষ লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে। চলুন আমরা আরো গভীরে যাই একটু নিজেকে তৈরী করার মূল মন্ত্র গুলি জেনে নিই ।


আপনার জন্যে ঃ 

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

নারী উন্নয়ন বলতে কি বুঝায় ? বাংলাদেশের উন্নয়নে নারীর ভূমিকা কি ?

জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত


জীবনের লক্ষ্য বা উদেশ্য কি হয় উচিত এই বিষয়টা সম্পূর্ণ আপনার একটি বিষয়। তবে একটি কথা মনে রেখে যদি আপনি এগিয়ে জান তাহলে আমি মনে করি আপনি অবশ্যই সফল হবেন। 

প্রথম ধাপ :


আপনাকে একজন ভালো মানুষ হতে হবে। যেমন আপনার জীবনের অনেক কিছু নির্ভর করে আপনার জীবনের চিন্তার উপর। আপনার জীবনের লক্ষ্য কি হওয়া উচিত সেটার মূল চাবিকাঠি হচ্ছে ভালো মানুষ হওয়া। 


মনে রাখবেন অসৎ উদ্দেশ্য কোনোদিন পূরণ হয় না।  যদি ও পূরণ হয় তাতে সুখ থাকলেও শান্তি থাকে না। কারণ ভালো মানুষদের এবং সৎ মানুষদের অধ্যবসায় পরিপূর্ন থাকে। মনে রাখবেন আপনার পরিশ্রম হল আপনার মূল লক্ষ্যের স্রষ্টা । 


সুচিন্তা এবং আপনার অধ্যাবসায় যদি ভালো না হয় তাহলে আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন না। সুচিন্তা মানুষকে উত্তর উত্তর শ্রীবৃদ্বি করে। আবার উদ্দেশ্যহীন তরনি কোনো মূল্য নেই। 

দ্বিতীয় ধাপ :


এবার আপনি চিন্তা করুন কি করলে আপনি জীবনে ভাল ভাবে জীবন কাটাতে পারবেন। অনেকের মনে এই প্রশ্ন বার বার আসে যে আমি ভবিষ্যতে একটি সুন্দর সুশৃংঙ্কল জীবন কাটাতে চাইলে আমার অবশ্যই অর্থ উপার্জন করতে হবে।


তাহলে সৎ পথে কি করলে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। অনেক ই আছে ডাক্তার, মাস্টার,ব্যাংকার আরো অনেক কিছু হওয়ার বাসনা করেন। এটি করতেই পারেন।  সেভাবে আপনাকে এগুতে হবে। 

তৃতীয় ধাপ :


এবার আসি আপনি যে বাসনা লালায়িত করছেন মনের মধ্যে সেটি যদি বাস্তব রূপ দিতে চান। তাহলে এই হিসেবে কি আপনি সঠিক পথে এগুচ্ছেন?

প্রশ্ন রইল। আপনি যাই হোন না কেন বা যাই হওয়ার বাসনা রাখেন না কেন ? 


জীবনের উদ্দেশ্য কি

তার জন্যে চাই অধ্যাবসায়। কঠোর পরিশ্রম। খুব ধৈর্য ,প্রেম এবং গভীর ভালোবাসা দিয়ে আপনাকে পরিশ্রম করে যেতে হবে। কোনো কাজের মধ্যে যদি প্রেম না থাকে তাহলে মানুষ সফল হতে পারেন না। আপনার জীবনের উদ্যেশ্য বা  লক্ষ্য যদি পূরণ করতে চান তাহলে আপনাকে সঠিকভাবে এগিয়ে যেতে হবেই । 

কারণ আমরা জানি “পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি”।

চতুর্থ ধাপ :


জীবনের লক্ষ্য বা উদেশ্য সফল করতে গেলে।  মানুষ অনেক সময় অনেক কিছুর সম্মুখীন হয়। তার মধ্যে আমি একটি কোথায় বলব সেটি হচ্ছে ডিপ্রেশান। অনেকে আছে খুব তাড়াতাড়ি সহজে সব কিছু কাছে পেতে। আবার অনেকে আছে পরিশ্রম না করেই কিভাবে লক্ষ্য পৌঁছবে সেই চিন্তায় নিজে ডিপ্রেশানে ভুগে।

আরো পড়ুনঃ অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায় ।


এই ডিপ্রেশান মানুষকে তার লক্ষ্য বরারব পৌঁছাতে বাধা দেয়। এই সমস্যা থেকে অনেক প্রকারে উত্তরণ হতে পারেন। আপনি যখন এই সমস্যা উপনীত হবেন তখন আপনি মনীষীদের কথা গুলি পড়তে পারেন। এই এগুলিই আপনাকে মানুষিক সাহস জোগাবে। কারণ বিপদে মহাজনদের বাণী কিংবা ভাল মানুষের সাথে সংঘ করা খুব জরুরি। 

পঞ্চম ধাপ : 


এই অংশে মানসিক বল নিয়ে একটু কথা বলবো। মানুষের জীবনের উদেশ্য বা লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে দৃঢ় মানসিক বল খুবই দরকার।  কারণ একজন মানুষের মন কোনো বিষয়ে আগে যেভাবে পৌঁছায়, সেভাবে আর কেউ পৌঁছতে পারে না।


কারণ মনের গতি গণনা করার মত কোনো যন্ত্র এখনো তৈরী হয়নি। এই ক্ষেত্রে আপনার প্রবল ইচ্ছা আপনাকে অবশ্যই আপনার লক্ষ্যে বা উদেশ্যে পৌছিয়ে দেবে। 


একটা মনীষীর কথা আছে "স্বপ্ন ঐটা নই, যেটা আপনি ঘুমিয়ে দেখেন। স্বপ্ন সেটা যেটা আপনাকে ঘুমাতে দেয় না। তাই মানসিক বল একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। 

জীবনের উদ্দেশ্য নিয়ে উক্তি


১. শুধু বেঁচে থাকাই মানুষের জীবনের সার্থকতা নয়, সার্থকতা লুকিয়ে আছে বেঁচে থাকার অর্থপূর্ণ কারণ খুঁজে পাওয়ার মাঝে ।
ফিওদর দয়োভস্কি (বিশ্বখ্যাত রাশিয়ান লেখক)


২. কখনো কি ভেবেছ, কিছু মানুষ কেন যা চায়, তাই পায়; আর কিছু মানুষ অনেক কষ্ট করার পরও কিছুই পায়না? এর কারণ লক্ষ্য। কিছু লোকের লক্ষ্য আছে, কিছু লোকের নেই। লক্ষ্য থাকলে অর্জন করতে পারবে – লক্ষ্য না থাকলে কিছুই পাবে না।


আর্ল নাইটেঙ্গেল


জীবনের উদ্দেশ্য কি

৩. যদি সুখী হতে চাও, তবে এমন একটি লক্ষ্য ঠিক করো, যা তোমার বুদ্ধি আর শক্তিকে জাগ্রত করে, এবং তোমার মাঝে আশা আর অনুপ্রেরণা সৃষ্টি করে


এ্যান্ড্রু কার্নেগী


৪. পৃথিবীতে যারাই বিশাল অর্জন করেছে, তাদের সবারই একটি বিশাল লক্ষ্য ছিল। তাদের চোখ ছিল এমন লক্ষ্যের দিকে – যার অবস্থান অনেক উঁচুতে; এমন লক্ষ্য যাকে ছুঁতে পারা অসম্ভব বলে মনে হত।


– অরিসন মার্ডেন (সাকসেস ম্যাগাজিনের প্রতিষ্ঠাতা, ও বিশ্বখ্যাত মোটিভেশনাল লেখক)


৫. লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে আমাদের পরিকল্পনা-দিয়ে-তৈরী গাড়িতে চড়তে হবে। এটার ওপর আমাদের পূর্ণ ভাবে বিশ্বাস রেখে নাছোড়বান্দার মত এগিয়ে যেতে হবে। এটা ছাড়া সাফল্যের আর কোনও পথ নেই ।


– পাবলো পিকাসো (ইতালিয়ান চিত্রশিল্পী, সর্বকালের সেরাদের একজন)


৬.সাফল্য হল সফলতার সাথে নিজের ঠিক করা লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা ।


আর্ল নাইটেঙ্গেল (সর্বকালের সেরা পার্সোনাল ডেভেলপমেন্ট এক্সপার্টদের একজন)


৭. জীবনকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সবচেয়ে ভালো একটি উপায় হল, একটি লক্ষ্য পূরণের পর আরও বড় লক্ষ্য ঠিক করা ।


 মাইকেল কর্ডা (সফল লেখক ও ঔপন্যাসিক)


৮. নির্দিষ্ট ভাবে লক্ষ্য ঠিক করতে পারা মানেই সেই লক্ষ্য অর্ধেক পূরণ হয়ে গেছে।


– জিগ জ্যাগলার (সেলস্ এক্সপার্ট ও লেখক)


৯. তুমি যদি লক্ষ্য ঠিক করে নিজের সবকিছু দিয়ে তার পেছনে ছোটো, এক সময়ে তোমার অর্জন দেখে তুমি নিজেই অবাক হয়ে যাবে ।

লেস ব্রাউন (লেখক ও মোটিভেটর)


১০. লক্ষ্য পূরণ না করতে পারা যতটা না বেদনার, জীবনে কোনও লক্ষ্য না থাকাটা তারচেয়ে বেশি দু:খজনক।


বেনজামিন মায়াস (মানবাধিকার কর্মী, সিভিল রাইটস মুভমেন্ট এর সহপ্রতিষ্ঠাতা)

শেষ কথা 

মানুষের জীবনের উদ্দেশ্য কি সেই সম্পর্কে অনেক কথা আমরা উপরে বর্ণনা করেছি। আশা করি আপনার জীবনের উদ্দেশ্য কি সেটা আপনি নিশ্চয় খুঁজে পাবেন। 


আমাদের প্রত্যেকের জীবনের উদ্দেশ্য আছে। লক্ষ্য আছে। সেইভাবে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। প্রতিটা বাধাকে যেন নিজের মত করে মোকাবিলা করতে পারি। সেই জন্যে দৃঢ়তার সহিত নিজেকে তৈরী করব। আশা করি ভালো থাকবেন ভালো রাখবেন। নিজের খেয়াল রাখবেন। ধন্যবাদ ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সবারজন্যে.কম এর নীতিমালা মেনে এ কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১