অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়। আত্মনির্ভরশীল হওয়া যায়

অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায় - অর্থ উপার্জনের কথা প্রত্যেক টি মানুষের চিন্তায় যেন খাপ খেয়ে থাকে প্রতিমুহূর্তে। কিন্তু ডিজিটাল যুগে মানুষের মধ্যে বিজ্ঞানের ছোঁয়া যেমন লেগেছে। সেই ভাবে অনলাইনের মাধ্যমে সারা বিশ্বের মানুষকে একত্রিত করেছে এই ডিজিটাল যুগ।

সূচীপত্র এই ডিজিটাল যুগে মানুষ এখন পরের দাসত্ব থেকে বের হয়ে নিজের উপর নির্ভশীল হতে মরিয়া। এই নিবন্ধে আমরা জানব অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়। কিভাবে অপরের উপর নির্ভরশীল না হয়ে সাবলম্বী হতে পারে।


অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়

সেই সম্পর্কে আরো বিশদ আলোচনায় অংশ নিতে সাথে থাকুন। আশা করি আপনার জীবনের চিত্র পরিবর্তণ করতে পারবো । 

 

অনলাইনে কিভাবে কাজ করে টাকা ইনকাম করা যায়


অনেক দিন ধরে আমরা জীবন ধারণ করেছি অপরের উপর ভিত্তি করে। এখন সেই দিন শেষ। এখন নতুন যুগের পরশে আমাদের চিন্তার পরিবর্তন হয়েছে।


হ্যা তবে মনে রাখতে হবে খুব  সহজেও কিন্তু  অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা যাই না। যেকোনো একটি কাজ কিন্তু আপনাকে শিখতে হবে অবসম্ভাবী। 


কারণ কোনো কাজ না জানলে এই অনলাইনে জগতে সার্থক হওয়া যায় না। যেকোন একটি স্কিল আমাদের আয়ত্ব করতে হবে।


অনেক বিষয় আছে যা দিয়ে আপনি অনলাইন ক্যারিয়ার গঠন করতে পারবেন।  তাহলে অনলাইনে কিভাবে কাজ করে টাকা ইনকাম করা যায় এই কথাটির সার্থকতা ঠিক থাকবে। 


আমরা এখন দেশে বসে সারা বিশ্বের মানুষের সাথে কাজ করতে পারবো। কেবল নিজের ক্ষমতা বলে। সেই বিষয়ে অনেক কিছুর পদ্বতির মাধ্যমে আমরা অনলাইন  টাকা ইনকাম করতে পারি। বিষয়গুলি নিচে দেওয়া হলো। সঙ্গেই থাকুন …


ডাটা এন্ট্রি


আমরা কীভাবে ডাটা এন্ট্রির  কাজ করে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারি। এই প্রশ্ন থেকে ই যায়। এখন বতর্মানে অটমেশন সিস্টেম চালু হলেও অনেক কর্পোরেট অফিসে ডাটা এন্ট্রি কাজ গুলি করার জন্যে প্রচুর জনবলের প্রয়োজন ।

অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়

ডাটা এন্ট্রির কাজ গুলি খুবই সহজ।  যেমন টাইপিং , হাতের টাইপিং স্পিড যদি ভালো হয়। বা ভালো ইন্টারনেট ব্রাউজ করার ক্ষমতা অথবা অফিসের জন্যে এক্সেল সিটের কাজ জানলে ও অনেক টাকা অনলাইন থেকে আপনি উপার্জন করতে পারবেন। 


কারণ অনলাইন জগতে এই পেশার চেয়ে আর সহজ পেশা বোধয় আর নেই।  তাই আপনি আজি কম্পিউটার টাইপিং , মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ,এক্সেল এবং মাইক্রোসফটের অফিস মেনেজমেন্ট পুরো আয়ত্ব করে আপনি এই কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে পারেন ।


সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট


এখন দিন দিন বহির্বিশ্বে এই সোশ্যাল মিডিয়া মেনেজমেন্ট এর খুব চাহিদা বেড়েই চলছে। সারা বিশ্বে ভিবিন্ন মার্কেটিং কোম্পানি গুলি অনলাইন মার্কেটিং এর মাধ্যমে তাদের ব্যবসাকে তুলে ধরছেন এবং প্রচার করছেন। কারণ ফেইসবুকের মতো এখন আরো অনেক প্লাটফর্ম তৈরী হয়েছে। 


যেখানে কোম্পানিগুলি তাদের ব্যবসা কে উন্নতির জন্যে সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলিতে জোগছে। এই ব্যবসা গুলিকে অপারেট করার জন্যে তারা সোশ্যাল মিডিয়া মেনেজমেন্ট এর জন্যে লোক খুজেঁন। এবং এই বিষয়ে ও অনেক টাকা দিয়ে তারা এক্সপার্ট দের নিয়োগ দিয়ে থাকে। 


স্যোশাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট এটি একটি দারুন কাজ। অনলাইন আপনার বিভিন্ন রকম সোশ্যাল প্লাটফর্ম গুলি আছে যেমন ফেইসবুক,টুইটার ,ইউটিউব লিঙ্কডিন, পিন্টারেস্ট এবং ইনস্টাগ্রাম থেকে শুরু করে আরো অনেক সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলি কে যদি ভালো ভাবে অপারেট করতে জানেন। 


তাহলে আপনি  সোশ্যাল মিডিয়া গুলি মেনেজমেন্ট করে ও এই অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। কারণ এই বিষয়গুলি ও মোটামুটি সবার জন্যে উপযুক্ত।  মোটামুটি একটু স্কিল থাকলে এবং একটু ইংলিশের মধ্যে দক্ষতা থাকলেই আপনি এই সেক্টরে ভাল ইনকাম করতে পারবেন ।

 

ওয়েবসাইট তৈরি করে অনলাইনে টাকা আয়


ওয়েবসাইট ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট এই সেক্টর টি অনেক বড় একটি মাধ্যম। ওয়েবসাইট তৈরী করার কাজ করে অনলাইন ইনকাম করা যাই। যেমন আমরা সচরাচর কোনো ব্যবসা করতে গেলে যেমন দোকান দরকার হয়। 


বা সয়দা পাতি কিনতে গেলে একটি দোকান থেকে কিনে থাকি। টিক তেমন করে এই ডিজিটাল যুগে অনলাইনে ও ব্যবসা পরিচালনা করার জন্যে এখন বড় বড় ব্যবসায়ীরা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তাদের ব্যবসাকে পরিচালনা করে থাকে।


এই সেক্টর এখন ছোট্ট ব্যবসা হতে একদম বড় ব্যসায়ীরা পর্যন্ত ওয়েবসাইট তৈরী করে তাতে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করে থাকেন। 


এবার আসি এই ওয়েবসাইট কি রকম বা কেমন ভাবে তা তৈরি করা যায়। এখন এই ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্যে আপনাকে বিশেষ কিছু দক্ষতা অর্জন করতে হবে। 


যেমন এইস টি এম এল ,সি এস এস, জাভাস্ক্রিপ্ট ,জ্যাকুয়েরী এবং বিভিন্ন রকম প্লাগিন্স দিয়েও আপনি একটি ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে পারবেন। এর সাথে php,jaba প্রোগ্রামিং এবং Phithon প্রোগ্রামিং এর মাধ্যমে একটি পরিপূর্ন ওয়েবসাইট বিল্ডাপ করতে পারেন।  


এই বিষয়গুলি ভালো ভাবে শিখে আপনি অনলাইনে একটি নিজের ক্যারিয়ার গঠন করতে পারবেন। অনলাইন অনেক রকম ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শেখানোর প্লাটফর্ম রয়েছে। আবার এ ছাড়াও আপনার লোকাল অনেক অনলাইনের সমস্ত কাজ কর্ম শিখানোর জন্যে ট্রেনিং সেন্টার রয়েছে।


সেখান থেকেও আপনি এই কাজ গুলি খুব সহজে ৩মাস বা ৬ মাসের ট্রেনিং করে নিজেকে উন্নত বিশ্বের সাথে তুলে ধরতে পারবেন। 


আবার তাছাড়া অনেক মাধ্যমে আপনি এই ওয়েবসাইট বিল্ডাপ করা শিখতে পারবেন। যেমন ওয়ার্ডপ্রেস এবং জুমলার মতো আরো অনেক বড় বড় প্লাটফর্ম আছে যেখানে শুধু ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ এর মাধ্যমে আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরী করে একটি ওয়েবসাইট বিল্ডাপ করে সেগুলি বিক্রি করতে পারবেন।


তবে মনে রাখতে হবে যেকোনো একটি কাজ আপনাকে ভালো ভাবে শিখে নিজেকে তুলে ধরতে পারবেন। এই ওয়েবসাইট ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট এর মাধ্যমে আপনি প্রচুর অর্থ ইনকাম করে স্বাবলম্ভী হতে পারবেন ।

 

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইন ইনকাম


অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং একটি সম্ভবনার ধার ,নিজেকে উন্নত করার জন্যে। এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হলো আপনি আরেকজনের প্রোডাক্ট কে নিজের মত করে প্রচার করবেন।

অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়


এবং এই প্রচার থেকে কোনো প্রোডাক্ট বিক্রি হলে সেখান থেকে আপনি কিছু ডলার কমিশন পাবেন। এই জন্যে আপনার একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট প্ৰয়োজন হবে। 


এবং ওয়েবসাইটের মাধমে আপনি ওপরের প্রোডাক্ট সম্পর্কে আপনার মতো করে লিখবেন। সম্পূর্ণ নিজের মতো করে। এবং এইগুলি অবশ্যি বিক্রি হয় এবং আপনি একটি ভালো মানের প্রফিট করতে পারবেন।


এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে মানুষ মাসে প্রচুর টাকা ইনকাম করে থাকেন। এবং এইটি একটি প্যাসিভ ইনকাম।  


এই সেক্টরটি দিন দিন প্রসারিত হচ্ছে। কারণ এখন প্রত্যেকটি ব্যবসা তাদের ব্যবসাকে উন্নত করার জন্যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার খুজেঁন।


প্রতিটা ব্যবসায়িক ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তারা একটি অপশন সব সময় দেখবেন সেখানে (Become an Affiliate) বলে একটি অপশন দিয়ে রেখেছেন। 


এর মাধ্যমে আপনি তাদের কাছে রিকুয়েস্ট পাঠাবেন এবং তারা যদি আপনাকে গ্রহণযোগ্য বলে মনে করেন তাহলে অবশ্যই আপনি তারা নির্বাচন করবেন।আপনি এর পর থেকে প্রচার চালিয়ে যেতে পারবেন।


এবং এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজ করে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনাকে কাজটি ভালো ভাবে শিখতে হবে। 


এখন ইউটিউবে ও অনেক রকম টিউটোরিয়াল পাওয়া যায় এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে। আপনি সেখানে কিছু সময় দিয়ে আপনি চাইলে এই স্কিলকে আয়ত্ব করতে পারেন।


এছাড়া ও আরো অনেক পথ আছে কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শিখবেন তা নিয়ে।  একটু অনলাইন ঘটাঘাঁটি করলে আপনি এই সম্পর্কে ভালো ভাবে স্কিল অর্জন করতে পারবেন ।


আরও পড়ুন ঃ  

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

ইউটিউব

ইউটিউব এখন ট্রেন্ড। এটি একটি ভিডিও মার্কেটিং। কারণ এই ইউটিউবিং করে লক্ষ বেকার এখন প্রচুর অর্থ উপার্জন করছেন। সেই সম্পর্কে আপনি হয়তো শুনেছেন বা দেখেছেন।


কারণ ইউটিউব দেখে নাই বা চিনে না এমন মানুষ পাওয়া বড় দুষ্কর। কারণ বিশ্বের সমস্ত আপ কামিং খবরাখবর এখন ইউটিউব এ প্রচার হয়। এটি একটি বড় প্লাটফর্ম। নিজেকে মেলে ধরার জন্যে অনেকে অনেক কিছু করার মাধ্যমে এই প্লাটফর্ম থেকে ভালো উপার্জন করছেন। 


এই ইউটিউব ভিডিও মার্কেটিং এখন খুব জনপ্রিয় একটি সেক্টর। আপনার হাতে যদি একটি ভিডিও মোবাইল থাকে বা একটি ভালো মানের ক্যামেরা যদি থাকে তাহলে সেটি ও ব্যবহার করে আপনি ভিডিও মার্কেটিং করতে পারেন।


কোনো প্রকৃতির ভিডিও ,বা ভাইরাল কোনো ভিডিও করে এই সেক্টর থেকে ভালো ইনকাম করতে পারবেন। আবার অনেকেই এই ইউটিউব দিয়ে কোনো কর্পোরেট ব্যবসার প্রোডাক্টকে ভিডিও মার্কেটিং করে প্রচুর থাকা ইনকাম করছেন। 


আপনি ও কেন পিছিয়ে থাকবেন। এগিয়ে জান। পিছিয়ে থাকলে তারা কিছু করতে পারেন না। এই ইউটিউবিং শিখতে হলে আপনি ইউটিউব থেকে ও অনেক কিছু শিখে নিতে পারবেন।


ইউটিউব এর টিউটোরিয়াল দেখে ও এই সেক্টরে আপনি দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন। এখন আপনি যা চান সব কিছু ই ইউটিউবে আছে। এই সেক্টরটি দিন দিন আরো উন্নত হচ্ছেন ।

 

ব্লগিং করে অনলাইন থেকে ইনকাম


ব্লগিং করে ও আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। অনলাইন অনেক সেক্টর আছে যা দিয়ে আপনি অনেক ইনকাম করতে পারবেন।

তবে আমি যে বিষয় গুলি নিয়ে কথা বলছি সেইগুলি খুব জনপ্রিয় এবং এই সেক্টরগুলিতে যদি আপনি স্কিল অর্জন করতে পারেন তাহলে আপনার আর কোনোদিকে তাকাতে হবে না।

অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায়

এই রকম ব্লগিং একটি মাধ্যম। কারণ অনলাইন যেকোন মাধ্যমে যেমন মিডিয়ামের মতো প্লাটফর্ম গুলিতে যুক্ত হয়ে আপনি লেখা লেখি করে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন ।


গুগল এডসেন্স থেকে অনলাইন ইনকাম

ব্লগিং হলো নিজের মত করে লেখা লেখি করা। যেকোন টপিক নিয়ে বা কোনো প্রোডাক্ট নিয়ে আপনার যদি ভাল লেখার দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি এই সেক্টরে লেখালেখি করেও ভালোমানের ইনকাম করতে পারবেন ।


সেটা হোক বাংলা কিংবা ইংলিশ যেকোনো ভাষায়। মধ্যে কথা হচ্ছে আপনার যদি লেখার দক্ষতা ভালো থাকে তাহলে আপনাকে আর পিছনে ফিরে থাকাতে হবে না । এই স্কিল শিখতে হবে। ভালো করে অর্জন করতে হবে ব্লগিং কিভাবে করে। কারণ অনলাইন অনেক মাধ্যম বা প্লাটফর্ম আছে যেখানে এই রকম ব্লগারদের হাইয়ার করে।


তাদের নিজের প্রোডাক্ট সম্পর্কে বা কোন ওয়েবসাইটের জন্যে ভালো কন্টেট লিখার জন্যে এই ব্লগারদের খুব ভালো চাহিদা রয়েছে ।


কোথায় কোথায় ব্লগার দের খোঁজ করে


যেমন Fiveer ,আপওয়ার্ক ,ফ্রীলেন্সার,পিপল পার আওয়ার এবং গুরু ডট কম এর মত অনেক প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে এই কাজ গুলিকে আপনি খুঁজে পাবেন। 

তবে ব্লগিং বলতে ভিডিও ব্লগিং ও এর অন্তর্ভুক্ত কারণ ভিডিও ব্লগিং অডিও ব্লগিং এর জন্যে ও খুব চাহিদা রয়েছে। এইভাবে আপনি নিজেকে এই ব্লগিংয়ের মাধ্যমে তুলে ধরতে পারবেন।


কথা হচ্ছে আপনার যদি এই অনলাইনে কাজ করে ইনকাম করার মোট ইচ্ছা হয় তাহলে আপনি এর মাধ্যমে ও ভাল একটি উপার্জন করতে পারবেন বলে আমি মনে করি। 

গুগল এডসেন্স থেকে অনলাইন ইনকাম করার জন্যে নিজেকে আগে প্রস্তুত করতে হবে। কারণ এটি সম্পূর্ণ নতুনত্বকে প্রাধান্য দেই। এই গুগল এডসেন্স থেকে মানুষ এখন অনেক টাকা অর্জন করতেছে।


গুগল এডসেন্স মানে হলো আপনার ওয়েবসাইটে গুগল কোম্পানি তাদের নিজস্ব এড (বিজ্ঞাপন) দেখিয়ে সেই ওয়েবসাইটেকে টাকা প্রদান করে পার ভিউর উপর। সেই ভিউ দিন দিন যত বাড়বে আপনার ইনকাম ও তত বাড়বে ।


এডসেন্স থেকে ইনকাম


এখন কথা হলো আপনি কিভাবে এই এডসেন্স এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন ? আসুন একটু জেনে নিই সেই মাধ্যম সম্পর্কে। প্রথমে আপনাকে একটি নিজের নাম ডোমেইন এবং হোস্টিং নিতে হবে যেখানে আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরী করবেন।


এই ক্ষেত্রে আপনি নিজে করতে না পারলেও অনেক সাইট পাবেন যেখানে তারা খুব কম টাকা দিয়ে একটি ওয়েবসাইট আপনাকে বানিয়ে দেবেন। এবং এই ওয়েবসাইট তৈরী হয়ে গেলে আপনি সেই ওয়েবসাইটে আপনার নিজস্ব কথা কন্টেন আকারে লিখে সেগুলি পাবলিশ করতে পারবেন। 

এবং দিন দিন আপনি নিজের মত করে যেকোন টপিক নিয়ে লিখুন। সেখানে যদি মানুষের খুব ভিউ আসে। বা মানুষ আপনার সেই লিখা পড়ে তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের একটা মান বাড়বে।


এবং যখন আপনার ২০ থেকে ৩০ টা কন্টেন্ট হয়ে যাবে তখন আপনি গুগল এডসেন্সের জন্যে আবেদন করতে পারবেন। এবং আপনার কন্টেন্ট গুলি যদি কোয়ালিটিফুল হয়। 

গুগল এর নীতিমালা মেনে লিখে থাকেন সেই অনুযায়ী গুগল আপনার ওয়েবসাইট কে প্রাধান্য দিয়ে আপনার সাইটকে এপ্রোভ দেবেন।


কারণ গুগল কিন্তু কোনো কপি কন্টেন্ট বা অন্যের লিখাকে নকল করে আপনার সাইটে পেস্ট করে আপনি যদি পাবলিশ করে দেন তাহলে সেক্ষেত্রে আপনি গুগল এডসেন্স এপ্রোভাল পাবেন না।


তাই নিত্য নতুনত্ব আপনার মনের মত করে মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখাকে গুগল খুব প্রাধান্য দেয়। 

এবং এর পর থেকে তারা আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখাবে এবং সেই বিজ্ঞাপন আপনার ভিজিটর রা দেখবে সেই বিজ্ঞাপন দেখার মাধ্যমে আপনাকে গুগল একটি টাকা প্রদান করবেন। এই প্রক্রিয়াকে বলে গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করা।


এটি একটি পেসিভ ইনকাম। আপনি একদিন নই দীর্ঘদিন ধরে আপনি এই সেক্টরে টিকে থাকতে পারবেন। যদি সমস্ত নীতিমালাগুলো ঠিক রেখে আপনি এগিয়ে জান। 


এখন কথা হচ্ছে কিভাবে আপনি এই বিদ্যাকে আয়ত্ব করবেন। অনেক প্রকারে এই স্কিল ডেভেলপ করতে পারবেন। বিশেষ করে ইউটিউবে অনেক টিউটোরিয়াল আছে। যা দেখে আপনি খুব সহজে এই কাজটি শিখতে পারবেন ।


মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করার উপায়


মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করার উপায় এটি শুধু একটি  বাক্য। আপনি কি শুধু ৫০ হাজার টাকা ইনকাম করবেন ? উত্তর হবে অবশ্যই না। কেননা মানুষ অনলাইন থেকে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারলে আর কি কম টাকা ইনকাম করার জন্যে বসে থাকবে।


চলুন তাহলে আমরা কিভাবে এই টাকা ইনকাম করবো সেই সম্পর্কে একটু আলোচনায় আসি। উপরে বর্ণিত সব মাধ্যমে আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 


১০ বা ২০ হাজার টাকা নই। আরো অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আবার আপনি যদি কোনো স্কিল না জানেন তাহলে আপনি এক টাকা ইনকাম করতে পারবেন না। যেকোন একটি স্কিল আপনাকে অর্জন করতে হবে।


উপরে যে সব স্কিল এর কথা আমরা বর্ণনা করেছি এই সব মাধ্যম থেকে আপনি ব্লগিং সেক্টর কে আপনি বেচে নিতে পারেন।  কারণ এই স্কিলটা একদম স্বতন্ত্র।  কারো উপর আপনাকে বসে থাকতে হবে না। 


এই ব্লগিং এর মাধ্যমে আপনি আপনার একটা ওয়েবসাইট তৈরী করে আপনার ব্লগিংএর মাধ্যমে আপনি একটা হ্যান্ডসাম ইনকাম অনলাইন থেকে করতে পারবেন।


বর্তমানে এই ব্লগিঙের মাধ্যেম  মানুষ কারো উপর নির্ভরশীল না হয়ে নিজে নিজে সাবলম্ভি হচ্ছে।


এই সেক্টরে আপনি ৫০ হাজার টাকা নই আরো অনেক টাকা প্রতি মাসে ইনকাম করতে পারবেন। তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কারণ এখানে আপনাকে কারো কাছে জবাবদিহি করতে হচ্ছে না।  


সম্পূর্ণ আপনার নিজের ক্ষমতা বলে আপনি অনলাইন একটি জায়গা করে নিতে পারবেন। মনে রাখবেন আপনি যে স্কিলটা শিখছেন অবশ্যই সেই স্কিলটা আপনার জন্যে না, অন্যের জন্যে ও খুব প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। 


তাই আমি বলবো আপনি আজি এই কাজে লেগে যান। আশা করি অবশ্যই আপনি একদিন সফল হবেন।লেগে থাকলে কেউ আপনাকে ঠেকাতে পারবেনা ইনশাল্লাহ ।


মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম


মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার কথা সব মানুষের মধ্যে একটি সচরাচর প্রশ্ন। 
কেননা সবার কাছে তো আর কম্পিউটার নেই। বা থাকে না। কিন্তু সবার হাতে এখন একটি স্মার্ট ফোন রয়েছে যা কম্পিউটারের অনেক কাজ সহজে মানুষ করতে পারেন।

তাই এই ধরণের প্রশ্ন আমাদের মধ্যে আসতেই থাকে। এইটা আসা স্বাভাবিক। আজকে এই মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার কিছু মাধ্যম বলবো। 
যেমন

  • বিকাশ থেকে ইনকাম মোবাইল দিয়ে 
  • ভিডিও তৈরী করুন ইউটিউব থেকে 
  • ভিডিও অথবা ফটোগ্রাফ বিক্রি করে
  • মোবাইলের মাধ্যমে অনলাইন টিউশন করে
  • ফেসবুক ই-কমার্স মার্কেটিং মাধ্যমে 
  • মাইক্রোওয়ার্ক সাইট থেকে
  • ইনভেস্টমেন্ট সাইট থেকে
  • ডেলিভারি সার্ভিস এর মাধ্যমে
  • টাকা ইনকাম করার অ্যাপস দিয়ে

এই সমস্ত মাধ্যম থেকে আপনি প্রচুর থাকা ইনকাম করতে পারবেন মোবাইল দিয়ে। এর যেকোনো একটি স্কিল সম্পর্কে ভালো করে জানা থাকলে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।


কারণ আমরা অনেক সময় মোবাইলে সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যে সময় কাটিয়ে থাকি। এখন আর সে সময় নেই।  এখন আমরা যে মাধ্যম দিয়ে বিনোদন করি সেই মাধ্যম দিয়ে আমরা অর্থ উপার্জনের দিকে এগিয়ে যাবো।

অযথা সময় নষ্ট না করে এই স্কিল গুলি ভালো ভাবে শিখে আমরা টাকা ইনকাম করতে পারি।


 অনলাইনে আপনি ভালোভাবে যদি একটু চেষ্টা করে খুঁজে দেখেন এই স্কিল সম্পর্কে তাহলে দেখবেন অনেক ট্রেনিং সেন্টারগুলি শুধু এই মোবাইলের মাধ্যমে কিভাবে টাকা ইনকাম করবেন সেই বিষয়ে শিক্ষা দিয়ে আসছেন।


আপনি এদের সাথে যোগ দিন। এবং আগে উপরের বর্ণিত সমস্ত টপিক গুলি থেকে যেকোনো একটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে কাজ টি আয়ত্ব করুন এবং টাকা ইনকাম করুন মোবাইল দিয়ে। এটিই হলো আমাদের প্রত্যাশা । 


শেষ কথা


অনলাইন অনেক মাধ্যমে ইনকাম করা যায়। সেই পন্থাগুলি আমরা দেখিয়ে দিয়েছি এবং চেষ্টা করেছি আপনাকে একটি ধারণা দিতে। অনলাইনে কিভাবে ইনকাম করা যায় এই প্রশ্নটি আমাদের সবার মধ্যে থাকে।


কারণ টাকা ছাড়া কেউ চলতে পারে না। সেই হিসেবে একজন মানুষ কিভাবে এই অনলাইন সেক্টর থেকে কি কাজ শিখে নিজেকে স্বাভলম্ভি করবে সেই বিষয়ে আপনাদের চেষ্টা করেছি ভালো কিছু জানিয়ে দেওয়ার জন্যে।


যেহেতু আমার এই ওয়েবসাইটে আপনি কষ্ট করে এসেছেন সেই হিসেবে আমাদের ও একটি কর্তব্য বর্তায়। ভালো থাকবেন। নিজের খেয়াল রাখবেন। ওপরের উপকারে নিজেকে বিলিয়ে দেবেন। 


এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সবারজন্যে.কম এর নীতিমালা মেনে এ কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১