কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়

 

কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়

মানুষের সারা দেহের মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর স্থান হচ্ছে চেহারা বা মুখ। কিন্তু এমন সুন্দর মুখের মধ্যে যদি প্রায় সময় ব্রণের আবির্ভাব দেখা যায়। তাহলে আমাদের একটু চিন্তার বিষয় থাকে। এবং মনের মধ্যে একটু সুন্দর্য হানির ভাব দেখা যায়। কিন্তু কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয় আমরা সেটাই জানিনা পোস্টসূচীপত্র 


আজকে এই ব্লগে কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয় এবং মুখে ব্রন হলে কি মাখা উচিত, ছেলেদের মুখে ব্রণ দূর করার উপায়, মেয়েদের মুখের ব্রণ দূর করার উপায় গুলি কি এবং কোন হরমোনের কারণে মুখে ব্রণ হয় এই সব কিছু বিষয় আজকে আপনার সাথে আলোচনা করবো। আশা করি আপনার উপকারে আসবে। সাথেই থাকবেন । 

কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়


ব্রণ কি


আমরা এই আর্টিকেলে আরো বিশেষভাবে আলোচনা করার ক্ষেত্রে আগেই জেনে নি ব্রণ কি। কেউ যদি এই ব্রণ সম্পর্কে জানেন তাহলে এড়িয়ে যেতে পারেন। যারা জানেন না তারা পড়তে পারেন। ব্রণ হলো একধরণের লালচে ত্বক বা মানব ত্বকের দীর্ঘমেয়াদী রোগ বিশেষ। 

যাকে মানুষ পিম্পল, প্যাপুল, ক্ষতচিহ্ন এবং নডিউল ও বলে বা চিহ্নিত করে থাকে। এটিকে ইংরেজিতে Acne vulgaris  বা Acne বলে। এটি প্রায় প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ-নারীদের মধ্যে দেখা দেয়। আবার অপ্রাপ্ত বয়স্ক দের মধ্যে ও দেখা দেয়। চলুন তাহলে আরো বিশেষভাবে আলোচনায় যাওয়া যাক যে মুখে ব্রণ কেন হয় বা কি কারনে হয় । 

মুখে ব্রণ কেন হয় বা কি কারনে হয়   


যখন এই ব্রণের আবির্ভাব ঘটে, তখন আমরা খুব বিচলিত হয়ে যায়। সুন্দর্য হারিয়ে যাওয়ার ভয়ে। কোনকিছু প্রতিকার করার জন্যে আগে জানতে হবে কি কারণে মানুষের মুখের মধ্যে ব্রণ হতে পারে। অনেকগুলি কারণে মুখে ব্রণ হতে পারে।


কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়


যেমন অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, বেশি তৈলাক্ত খাবার, ফাস্ট ফুড, জল কম খাওয়া, বাইরের মশলাদার খাবার খাওয়া এবং সর্বোপরি ত্বকের বিশেষভাবে যত্ন না নেওয়া। এই সব কারণে মানুষের মুখে ব্রণ হয়। এর চেয়ে আরো বেশি দেখা যায় যাদের মুখ বা ত্বক বেশি তৈলাক্ত থাকে। তৈলাক্ত ত্বকের কথা কি আর বলব। এদের মুখে যেন ব্রণের বসবাস।    


মুখে ব্রন হলে কি মাখা উচিত


মুখে ব্রণ হলে প্রাকৃতিক উপায়ে এবং ঘরোয়া উপায়ে অনেক কিছু ব্যবহার করা যায়।  তবে এই মুখের ব্রণের সমস্যা হলে আপনি কি ব্যবহার করবেন বা মুখে ব্রণ হলে কি মাখা উচিত এই বিষয়ে আমরা সবাই একটু জানার আগ্রহ রাখি। 

সেক্ষেত্রে আপনি ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে মুখের ব্রণের জন্যে ওষুধ মাখতে পারেন। কারণ হচ্ছে অনেকের মুখে ব্রণ হয় হরমোন জনিত সমস্যার কারণে। তবে ব্রণের জন্যে আপনি ডাক্তারের ঔষধ হিসেবে কোন সবান,ফেস ওয়াশ এবং কোন ক্রিম মাখতে পারেন। 

আরও পড়ুন ঃ
তাছাড়া ও ঘরোয়া উপায়ে আমরা অনেক কিছু মুখের ব্রণের জন্যে ব্যবহার করতে পারি। যেমন এলোভেরা, শসা, আলু এবং আরো অনেক কিছু ঘরোয়া উপায়ে আমরা মুখের ব্রণের জন্যে নিজে তৈরী করে মাখতে পারি বা ব্যবহার করতে পারি।

মুখের ব্রণ রোধী ঔষধ হচ্ছে স্যালিসাইলিক,রেসরসিনল এবং রেটিনল বেনজয়েল পারঅক্সাইড যুক্ত মলম আপনি ব্যবহার করতে পারেন। তবে পরামর্শ থাকবে আপনার মুখের ব্রণ কি কারণে হয়েছে সেটা জানার জন্যে এবং নির্দিষ্ট ওষুধের জন্যে ভাল চিকিৎসকের কাছে গিয়ে পরামর্শ নেওয়া। 

মুখে ব্রণের ঘরোয়া চিকিৎসা


মুখে ব্রন হলে আমরা বিচলিত হয়ে পড়ি কিভাবে মুখের ব্রণ দূর করা যায়। কারণ অনেকে বাইরের ওষুধ ব্যবহার করতে চায় না। কারণ এতে ভাল হওয়ার চেয়ে আরো হয়ত ব্রনের সমস্যা থেকে স্ক্রিনের সমস্যা হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে ।


কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়

তাই ঘরোয়া ভাবে মুখের ব্রণের চিকিৎসা করতে চেষ্টা করি। তাদের জন্যে এই লেখা গুলি। আমাদের এই ব্লগে সেই মুখের ব্রনের ঘরোয়া চিকিৎসার কথা বলার চেষ্টা করব যা আপনার মুখের ব্রনের জন্যে  খুব উপকারী বিষয় হতে পারে। 

চিকিৎসা সমূহ 


আমরা অনেক কিছু হাতের কাছে নিত্যদিন ব্যবহার করি কিন্তু জানিনা এইগুলি আমাদের মুখের ব্রণের জন্যে খুব বেশি পরিমান কার্যকরী। তাহলে চলুন সেই ব্যবহারিত জিনিস গুলি দিয়ে আমরা মুখের ব্রনের চিকিৎসা করি । যেমন

  • আপনি প্রতিদিনের দাঁত পরিষ্কারের টুথপেস্ট লাগাতে পারেন ঘুমানোর সময়। 
  • আবার নিমপাতা পেস্ট এবং তুলসীর পেস্ট বানিয়ে লাগাতে পারেন এতে করে আপনার মুখের ব্রণের জন্যে খুব উপকারী হতে পারে। কারণ নিম পাতার মধ্যে ফাঙ্গালের বিরুদ্ধে কাজ করার ক্ষমতা রয়েছে। এবং তুলসীর মধ্যে ব্যাকটেরিয়া বিরোধী ক্ষমতা রয়েছে। উভয় কিন্তু আপনার মুখের ব্রণের জন্যে একটি গরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 
  • শসা , লেবু এবং বেসন এই তিনটি উপায়ে আমরা ঘরোয়া ভাবে মুখের ব্রনের চিকিৎসা করতে পারি । প্রথমে শসার রস দুই থেকে তিন চামচ এর সাথে দুই চা চামচ বেসন এবং  তিন থেকে চার ফুটা লেবু এইগুলি পেস্ট বানিয়ে আপনি চেস্টা করতে পারেন । হ্যা তবে অবশ্যই ব্যবহার করার আগে ঠান্ডা পানি দিয়ে আগে আপনার মুখ ভাল করে ধুয়ে ফেলবেন । লাগাতার দুই তিন সপ্তাহ ব্যবহারে আপনার মুখের ব্রন দূর হতে পারে ।
  • এক চা চামচ দারুচিনি গুঁড়া এবং দুই টেবিল চামচ মধু নিয়ে আপনি একসাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। 
  • এলোভেরা তো আছেই। কারণ অ্যালোভেরা এই মুখের ব্রণের জন্যে খুব বেশি কার্যকর। শুধু মুখের ব্রণের জন্যে নই সুন্দর্যর জন্যেও মানুষ এই অ্যালোভেরা ব্যবহার করে থাকে।
  • আরও একটি উপায় আছে সেটি হচ্ছে ভিটামিন ই ক্যাপ্সুলের সাহায্যে। প্রথমে আপনি এই ভিটামিন ই ক্যাপসুল দুইটা নিয়ে তার মধ্যে থেকে তেলগুলি বের করুন , এর সাথে আতপ চালকে গুড়া করে এক চা-চামচ একসাথে মেশান এবং এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে লাগাতে পারেন তাতে আপনার মুখের ব্রন দূর হবে । 
  • ডিমের সাদা অংশ ও ব্যবহার করতে পারেন। 

এইগুলি সব ঘরোয়া উপায়ে মুখের ব্রণের জন্যে খুব উপকারী এবং এইগুলি আমাদের হাতের নাগালেই থাকে। তাই বিশেষ করে যারা বাইরের ক্যামিক্যাল ব্যবহার করতে অপছন্দ করেন তারা এইগুলি ব্যবহার করে আপনার মুখের ব্রণের সমস্যা সমাধান করতে পারেন । 

কোন হরমোনের কারণে মুখে ব্রণ হয়


মানব শরীরের হরমোন গুলি এমন ভাবে গঠিত যা পরিমানের চেয়ে বেশি হলেও সমস্যা হয়, আবার কম হলেও আমাদের এই শরীর বা মুখ সব জায়গায় এই হরমোনের প্রভাব পড়ে।  অনেক কারণে আমাদের মুখে ব্রণ হতে পারে। কোন ভিটামিনের অভাবে যেমন আমাদের মুখে ব্রণ হয়। টিক একই ভাবে হরমোনের কারণেও আমাদের মুখে ব্রণ হয়। 

শরীরে অ্যান্ড্রোজেন নামক হরমোনের পরিমান বৃদ্বি পেলে, অর্থাৎ আমাদের শরীরে যতটুক অ্যান্ড্রোজেন হরমোন প্রয়োজন ততটুকের চেয়ে বেশি হয় তাহলে আমাদের ত্বক বেশি তৈলাক্ত হয়ে যায়। এবং ত্বকে সেবাম কোষগুলি বেশি কর্যকর হয়ে উঠে। এর ফলে আমাদের মুখের ব্রণের আবির্ভাব হয় তৈলাক্ততার কারণে।

ছেলেদের মুখে ব্রণ হয় কেন -ছেলেদের মুখে ব্রণ দূর করার উপায়



কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়

ছেলেদের আর মেয়েদের মুখে ব্রণের জন্যে আলাদা কিছু কারন রয়েছে। তারমধ্যে ছেলেদের
প্রোপিওনিব্যাকটেরিয়াম ব্রণ নামক একটি ব্যাকটেরিয়া ব্রণের জন্যে খুব বেশি দায়ী। তবে এছাড়া ও বেশি পরিমানে ক্যামিক্যাল ব্যবহারের ফলে মুখে ব্রণ হয়ে থাকে। আবার কারো কারো বংশগত ভাবে মুখে ব্রণের সমস্যা দেখা দেয় এবং পরিবেশগত কারণেও ছেলেদের মুখে ব্রণ হয়। 

অনেকগুলি কারণের মধ্যে কিছু ওষুধ ব্যবহারে ও হয়, যেমন ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, লিথিয়াম এবং কর্টিকোস্টেরয়েড এইগুলি প্রদান কারণ ছেলেদের মুখে ব্রণ হওয়ার জন্যে। উপরোক্ত সমস্ত কারণে ছেলেদের মুখে ব্রণ হয়। চলুন তাহলে কিভাবে উপায়ে আমরা এর থেকে মুক্তি পেতে পারি তার সম্পর্কে একটু জেনে আসি। 

ছেলেদের মুখে ব্রণ দূর করার উপায়


ছেলেদের মুখে ব্রণ দূর করার উপায় হিসেবে আমরা প্রসিদ্ব একটি ঘরোয়া পদ্বতির কথা বলার চেস্টা করছি । যেমন আপনি চন্দন গুঁড়া এবং কাঁচা হলদের গুঁড়া দিয়ে, এই দুটি একই দুই চা চামচ  আলাদা পাত্রে নিয়ে হালকা পানি দিয়ে পেস্ট বানিয়ে আপনার ব্রণের জায়গা লাগাতে পারেন।
 
এবং এই মিশ্রণটি যখন শুকিয়ে যাবে তখন ঠান্ডা পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে আপনার ব্রণ ও উপশম হবে ব্রণের জায়গার দাগ ও চলে যাবে। 

মেয়েদের মুখে ব্রণ দূর করার ঘরোয়া উপায়


এতক্ষন ছেলেদের মুখে ব্রণ কেন হয় দূর করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করেছি এবং মেয়েদের মুখে ব্রণ দূর করার ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে আলোচনা করবো। এই ব্রণ জনিত সমস্যা সম্পর্কে মেয়েদের বেশি জানার আগ্রহ বেশি থাকে। কারণ ছেলেরা মেয়েদের চেহারার সুন্দরের পূজারী।

তাই বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এই মেয়েরা আপনজনদের আকর্ষিত করার জন্যে মুখের ব্রণের সমস্যা নিয়ে ভুগেন এবং মুখের ব্রণ দূর করার উপায় গুলি খুজেঁন। মেয়েদের মুখে ব্রণ দূর করার উপায় সমূহ :
 
কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয়
  • সূর্যের আলো (রশ্মি) থেকে নিজেকে দূরে রাখুন বা ছাতা ব্যবহারের অভ্যস্ত হোন। 
  • নিজের নক পরিষ্কার রাখুন। কারণ এতে করে নক মুখে লাগলে ব্যাকটেরিয়া ছড়াতে পারে। মুখের ব্রণের জন্যে এটি উপাকারী। 
  • পরিমান মত চন্দন গুঁড়া এবং গোলাপ জল মিশিয়ে লাগান। এবং ১ ঘন্টা পর ঠান্ডা পানি দিয়ে পরিষ্কার করুন। এভাবে ২ থেকে ৩ সপ্তাহ পর্যন্ত করতে পারেন। এতে মুখের ব্রণের সমস্যা উপশম হতে পারে । 
  • টমেটো এবং শসার রস একসাথে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরী করুন। এবং এটি নিয়মিত ১২ থেকে ১৫ মিনিট লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন পরিষ্কার পানি দিয়ে। এতে করে ব্রণ ও দূর হবে এবং আপনার পোড়ে যাওয়া ত্বক ও সুন্দর হয়ে যাবে। 
  • এলোভেরা পেস্ট তৈরী করে প্রতিদিন লাগাতে পারেন মুখে ব্রনের জন্যে
  • এবং ২০ থেকে ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটি ও মুখের ব্রণ দূর করার জন্যে উপায়। 
  • কাঁচা হলদের গুঁড়া এবং মধুকে একসাথে মিশিয়ে প্রতিদিন লাগাতে পারেন। এবং ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। 

কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয় এই নিয়ে শেষ মন্তব্য


কোন ভিটামিনের অভাবে মুখে ব্রণ হয় এই বিষয়ে আর তেমন কিছু বলার আছে বলে আমি মনে করি না এই ব্লগে। কারণ আমরা চেষ্টা করেছি কি কারণে মুখে ব্রণ হয় এবং ঘরোয়া উপায়ে কিভাবে মুখে ব্রণ দূর করা যায়। এই সমস্ত কিছু বলার চেষ্টা করেছি। 

আপনারা যদি এই পদ্বতিগুলি অনুসরণ করে চলেন তাহলে আমার বিশ্বাস যে আপনার আর বাইরের কোনো ওষুধ ব্যবহার না করে ঘরোয়া ভাবে এর মুখের ব্রণের সমস্যা সমাধান করতে পারেন। ধন্যবাদ আপনাকে ভাল থাকবেন। 

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সবারজন্যে.কম এর নীতিমালা মেনে এ কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১