রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা ও রুই মাছের অর্থনৈতিক গুরুত্ব


রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা - রুই মাছ আমাদের নিত্যদিনের খাওয়ারের তালিকার একটি প্রিয় খাবার । ছোট কাল থেকেই আমরা এই রুই মাছ খেয়ে আসছি বলেই আমরা খাই । কিন্তু বর্তমান যুগে রুই মাছ খেলে কি হয় বা রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা কি এই সম্পর্কে জানা আমাদের দরকার । কারণ ভাল মন্দ জেনে মাছ খেলে অনেক কিছু সম্পর্কে সচেতন হওয়া যায় ।

 সুচীপত্রঃতাই আজকে আমরা রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করার চেষ্টা করবো এবং রুই মাছের ডিমের উপকারিতা, রুই মাছে কি প্রোটিন বিদ্যমান, রুই মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম কি ? এই সব নিয়ে আজকের আর্টিকেল থাকছে আমার প্রিয় পাঠক বন্ধুরা ।  আশা করি সাথে সময় দিলে নিশ্চয় আপনাদের উপকারে আসবে বলে আমরা আশাবাদী । 

রুই মাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম কি

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানার আগে আমাদের রুই মাছের বৈজ্ঞানিক নাম কি তা একবার জেনে আশা দরকার বন্ধুরা । রুই মাছ আমাদের দেশের জন্য অত্যন্ত সুস্বাদু ও জনপ্রিয় একটি মাছ । যে মাছে অধিক পুষ্টিগুণ রয়েছে এককথায় যাকে বহু পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ মাছ হলো এই রুই মাছ। 

বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার মাধ্যমে যেহেতু এই মাছের গুনাগুন বিচার করা হয় সেহেতু রুই মাছের ও একটি বিজ্ঞানসম্মত নাম রয়েছে যাকে বলে বৈজ্ঞানিক নাম । 


কারণ প্রত্যেক প্রাণিকুল এবং জীবকুল সবার একটি করে সাধারণ নামের বাইরে বিজ্ঞান সম্মত নাম থাকে । তেমন করে রুই মাছের বিজ্ঞান সম্মত নাম হচ্ছে Labeo Rohita . আর ইংরেজিতে রুই মাছকে বলে Rohu Carp . এটি বাংলাদেশ ভারত এবং এশিয়া মহাদেশের প্রায় দেশে বহুল পরিচিত একটি মাছ ।  

রুই মাছ কত টাকা কেজি

আমাদের বাংলাদেশে এই রুই মাছের চাহিদা যেমন আছে ঠিক তেমন করে দামটা ও একটু বেশি হয়ে থাকে সিজনাল ভাবে । রুই মাছ চলে না এমন কোন ঘর বাকি নেই । কারণ আমরা মাছে ভাতে বাঙালি বলে একটা প্রবাদ আছে ।

রুই মাছের মান অনুযায়ী দামের পার্থক্য হয়ে থাকে । যেমন দেশি রুই মাছ আবার মিয়ানমারের রুই মাছ বা বিদেশি রুই মাছ । এর সাথে সাইজের মধ্যে কয়েকরকম তারতম্য থাকে ।


দেশি রুই মাছ পাবেন সাইজে যদি ১ থেকে ১.৫ কেজি পর্যন্ত হয় তাহলে তার দাম হবে কেজি প্রতি  ২০০ থেকে ২২০ পর্যন্ত । ০.৫ কেজি থেকে যদি ১ কেজি এর নিচে হলে এর দাম ১৮০ থেকে ২০০ ভিতরে থাকে । 


তবে এই দামগুলি হচ্ছে যখন রুই মাছের সিজন থাকে তখনের দরদাম সাইজ এবং কেজি প্রতি । আর একই সিজনে বিদেশী বা বার্মার অথবা মায়ানমারের রুই মাছ কিনতে যান তাহলে সাইজ যদি হয় ২.৫ কেজি থেকে ৪ বা ৫ কেজি ওজনের । 


তাহলে আপনাকে কেজি প্রতি গুনতে হবে ২৬০ টাকা থেকে ২৮০ টাকা পর্যন্ত অথবা এর চেয়ে বেশি হলে ৩০০ পর্যন্ত গড়াতে পারে । 


রুই মাছ সিজনাল ছাড়া যদি কিনতে জান তাহলে প্রত্যেক কেজিতে করে অন্তত ৩০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত বেশি গুনতে হবে । তবে আমাদের দেশে বিশেষ করে বার্মার রুই মাছগুলি বেশি বিক্রি হয় । 


কারণ এই বার্মার বা মায়ানমারের রুই মাছ গুলি অনেকটা অপচয় থেকে রক্ষা করে কেবল তাদের সাইজের কারণে । বিশেষ করে আমাদের দেশে বিশেষ করে কোন খাবারের প্রোগ্রামে এই মাছের খুব চাহিদা রয়েছে যদিও এই বার্মার রুই মাছের দাম ৩০০ থেকে ৩৩০ টাকা পর্যন্ত ছাড়িয়ে যায় ।


আরও জানুনঃ জোঁকের তেলর উপকারিতা

রুই মাছের শনাক্তকারী বৈশিষ্ট্য

রুই মাছের অনেক রকম বৈশিষ্ঠ বিদ্যমান না হলে তাদের রুই মাছের মত দেখতে অনেক রকম মাছ রয়েছে । চেনার জন্যে রুই মাছের বৈশিষ্ট গুলি তুলে ধরার চেষ্টা করলাম ।

  • ভাঁজঃ রুই মাছের পুরু ঠোঁট ভিতরের দিকে ভাঁজ করা দেখা যায় ।
  • মুখঃ রুই মাছের মুখে উপরে ঠোঁটের মধ্যে একজোড়া গোঁফ দেখা যায় ।
  • রংঃ পিঠের নিচের দিকে বাদামি রঙের হয় ।
  • আকৃতিঃ  রুই মাছের সামনের দিকে দেখতে সরু এবং পিছনের দিকে দেখতে বেশ চওড়া । 
  • পেটের বর্ণঃ রুই মাছের পেট রুপালি ও সাদা রঙের হয়ে থাকে ।
  • লম্বাঃ রুই মাছ লম্বায় প্রায় ২০০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয় 
  • ওজনঃ ওজনে এই রুই মাছ প্রায় ৪০ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে । 
  • জীবনকালঃ এই রুই মাছ অন্তত ১০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে । 


যারা বিশেষ করে রুই মাছের চাষ করেন তাদের জন্যে এই বৈশিষ্ট গুলি জানার খুব বেশি দরকার । কারণ এতে করে তারা সঠিকভাবে পরিচর্যা করতে পারে । অথবা সাধারণ মানুষ যারা এখনো রুই মাছের বৈশিষ্ট জানেনা তাদের জন্যে ও প্রয়োজনীয় তথ্য । 

রুই মাছে কি পুষ্টিগুন বিদ্যমান

রুই মাছে আর যাই থাকুক আপনার শরীরে চর্বি জমে না । রুই মাছ অনেক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি সাধু পানির মাছ এবং সুস্বাদু কাঁটা যুক্ত । রুই মাছে পুষ্টিগুনের মধ্যে রয়েছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড এবং প্রোটিন আরো রয়েছে ভিটামিন এ ই ডি । 


রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা

তাছাড়াও রয়েছে বি ২, বি ৬ এবং বি ১২ । কার্বোহাইড্রেড, সোডিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, জিংক, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম এবং ফোলেট। এই সকল পুষ্টিগুণ কেবল এই রুই মাছের মধ্যে বিদ্যমান । মাংসের চেয়েও যা সহজে খুবই হজমযোগ্য একটি মাছ হলো এই রুই মাছ। 

রুই মাছের উপকারিতা

আজকের আর্টিকেলটি হচ্ছে রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে । তারপর ও অনেক কিছুই জানার রয়েছে তাই আমরা চেষ্টা করেছি রুই মাছ নিয়ে কিছু অজানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করার । রুই মাছের অনেক উপকারিতা রয়েছে। তৎমধ্যে আমরা কিছু উপকারিতা নিম্নে লিস্ট আকারে বলার চেষ্টা করছি প্রিয় পাঠক বন্ধুরা ।


রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা

  • মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে প্রোটিন ও ভিটামিনের উপস্থিতির কারণে । 
  • রুই মাছ মানুষের ১৫% স্ট্রোকের ঝুঁকি কমিয়ে দেয় । 
  • হার্টের জন্যে খুবই উপকারী কারণ এতে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড রয়েছে ।
  • স্নায়ুতন্ত্রের স্বাস্থ্য খুবই ভাল রাখার ক্ষেত্রে রুই মাছের ভূমিকা অপরিসীম ।
  • চোখের স্বাস্থ্য ভাল রাখে কারণ রুই মাছে ভিটামিন এ রয়েছে ১৪০ আইইউ । 
  • শান্তিপূর্ণ ঘুমের ক্ষেত্রে ভাল এবং ইনসোমিয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায় ।
  • একজিমা থেকে মুক্তি দিয়ে থাকে এই রুই মাছ ।
  • বয়স্ক মানুষের জয়েন্টের ব্যথা থেকে রক্ষা করে ।  
  • ব্লাডপ্রেশার এবং ডায়বেটিসের ক্ষেত্রে বেশি উপকারিতা বয়ে আনে রুই মাছ ।
  • ক্যালোরি থাকার কারণে ওজন কমানোর ক্ষেত্রে ও অপরিসীম উপকার বয়ে আনে ।
  • রুই মাছে বিদ্যামান প্রোটিন ও ফাইবার কোষ্টকাঠিন্য থেকে মুক্তি দেয় ।
  • ভিটামিন ই এবং ভিটামিন বি ১২ এর উপস্থিতির জন্যে ত্বকের উপকার করে । 

রুই মাছের অপকারিতা 

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতার মধ্যে শুধু যে উপকারিতা রয়েছে তা নই । অর্থাৎ বেশির উপকারিতা থাকলেও কিছুটা অপকারিতা রয়েছে । তবে তা মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করার মত তেমন কিছু নই । আমরা সেই বিষয়ে নজর দিয়ে বলার চেষ্টা করছি অপকারিতা গুলি কি ।

  • বিশেষ করে যে রুই মাছ গুলি বিভিন্ন খাবার দিয়ে চাষ করার হয় এবং বিষাক্ত পানির মধ্যে চাষ করা হয় সেক্ষেত্রে আপনার একটু অপকারিতা বয়ে আনতে পারে । 
  • রুই মাছ খেলে অনেকের মধ্যে একটি এলার্জি জাতীয় সমস্যা দেখে দিতে পারে তবে বেশির ভাগ মানুষের ক্ষেত্রে নই । যেমন লালচে ভাব, ফুরফুড়ি, বমি বমি ভাব এই রকম। 
  • রুই মাছের অপকারিতার মধ্যে মাছে বেশি ক্যালোরি থাকার কারণে বেশি খেলে ওজন বৃদ্ধির ক্ষেত্রে একটু সমস্যা হতে পারে বা ওজন বৃদ্ধির ঝুঁকি রয়েছে ।

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা সাথে কিছু সতর্কতা

  • রুই মাছ যদিও সুস্বাদু তারপর ও বেশি খাওয়া উচিত নই এক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা বেশি প্রয়োজন । 
  • বিষাক্ত পানি এবং অপরিষ্কার জায়গায় চাষ করার রুই মাছ খাওয়ার ক্ষেত্রে সাবধানতা অবল্বন করা দরকার । কারণ মাছের সাথে বিষাক্ত কিছু জীবাণু আপনার শরীরের প্রবেশ করতে পারে । 
  • রান্না করার সময় ভাল করে সিদ্ধ হয়েছে কিনা তা ভাল করে দেখে নিয়ে তারপর খাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা থাকুন । 

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা পাশে অর্থনৈতিক গুরুত্ব

আমরা শরীরের জন্যে এতক্ষন রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে আলোচনা করেছি । রুই মাছ নিয়ে যদিও আমরা স্বাস্থ্য সম্পর্কে বার্তা দিয়ে থাকি কিন্তু রুই মাছের অর্থনৈতিক গুরুত্ব রয়েছে অনেক বেশি আমাদের দেশের জন্যে ।


 রুই মাছ নিয়ে ব্যবসা করার ক্ষেত্রে খুব সহজে লাভবান হওয়ার একটি মাছ । এই রুই মাছের চাষ করে আমাদের দেশে অনেক বেকার তাদের বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি পেয়েছে । কারণ এটি খুব সহজে চাষ করা যায় । 


পুকুর ও বিল কিংবা অনাবাদি জমিতেও আপনি খুব সহজে চাষ করতে পারেন । অনেকে রুই মাছের চাষকে জীবনের একটি ব্যবসায়িক অংশ হিসেবে গ্রহণ করেছেন এবং জীবনের অভাবের চাকা ফিরিয়ে বর্তমানে ধনি হয়েছে । 


কারণ এটি খুব তাড়াতাড়ি বড় হয় এবং বাজারে এর দাম খুব ভাল । যার দরুন আমাদের দেশের অনেক মৎস চাষিরা এবং নতুন উদ্যোক্তারা দেশের অভাব পূরণ করে বিদেশে রপ্তানি করছেন । 


এতে করে বৈদেশিক মুদ্রাও সরকারি তহবিলে রেমিটেন্স হিসেবে আয় হচ্ছে আবার অনেকের কর্মসংস্থান ও হচ্ছে । আপনি গ্রামে গেলে বেশির ভাগ দেখতে পাবেন এই পুকুর কিংবা বড় হাওড় এর একটি অংশ এই রুই মাছের চাষ করেই অর্থনৈতিক উন্নতি করছেন ।  

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে লেখকের শেষ মন্তব্য

রুই মাছের উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে অনেক্ষন ধরে আমরা বক বক করেছি । বাচালতা না নিয়ে রুই মাছ সম্পর্কিত কোন তথ্য আশা করি আর জানার কথা না । তারপর যেহেতু জানার শেষ নেই সেহেতু পাশে থাকবেন শেয়ার করবেন এবং আমাদের যোগাযোগের ঠিকানায় গিয়ে জানার আগ্রহ সম্পর্কে বলতে পারেন আমরা সেই বিষয়ে বলার চেষ্টা করবো ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সবারজন্যে.কম এর নীতিমালা মেনে এ কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১