ফাইভার গিগ কি এবং ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় ২০২৩


ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায়


অনলাইনে অনেক রকম ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস রয়েছেন। তারমধ্যে ফাইভার খুব জনপ্রিয়। এবং কাজের পরিমান ও ভাল । ভাল কাজের ডিমান্ট ও পাওয়া যায়।  কিন্তু আপনি ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় জানেন না। 

অনেকদিন ধরে আপনি ফ্রিল্যান্সিং কাজ শিখে বসে আছেন। এমনকি ফাইভারে একাউন্ট ও আছে। কিন্তু ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় জানেন না। কিভাবে আপনি ফাইভারে কাজ পাবেন। কিভাবে প্রোফাইল তৈরি করবেন জানেন না। 

পোস্টসূচীপত্র আজকে এইসব কিছুর প্রশ্ন নিয়ে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করবো। কারণ অনেকে ফ্রিল্যান্সিংয়ের অনেক ভাল কাজ জানেন। সঠিক নিয়ম জানেনা বলে ফাইভারে কাজ পাচ্ছেন না। কিন্তু হতাশায় ভুগছেন। 


অনেকদূর এগিয়ে ও আপনি অর্থের দেখা পাচ্ছেন না। তবে চিন্তা করবেন না আমরা আপনাকে সঠিক পথ দেখানোর জন্যে চেষ্টা করবো ।

ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় কি ? 


ফাইভারে কাজ পাওয়ার অনেক রকম মাধ্যম রয়েছে। আপনি সেগুলি সঠিকভাবে পালন করলে ফাইভারে কাজ পাওয়া কোনো ব্যাপার না। সঠিক গাইডলাইন অনেকে জানেন না। 

বা এমন কিছু বিষয় আছে যেগুলি আপনি না জানলে শত কাজ জানলে ও আপনি অর্ডার পাবেন না । নিচে কিছু ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় সম্পর্কে বলা হলো।


  • প্রোফাইল তৈরি

  • গিগ টাইটেল ও ডেসক্রিপশন

  • দর্শনীয় এবং অপ্টিমাইজেবল গিগ টাইটেল 

  • ট্যাগ ও ডেসক্রিপশন এ সেরা ও সঠিক কিওয়ার্ড ব্যবহার

  • সোশ্যাল মিডিয়াতে গিগ মার্কেটিং 

  • সময় দেওয়া 

  • স্কিল টেস্ট দেয়া

  • কাজের কোয়ালিটি ও অন-টাইম ডেলিভারি

  • ফাইভার ফোরাম ভিজিটিং 


প্রোফাইল তৈরি


সঠিকভাবে এবং সুন্দর প্রোফাইল তৈরী করা ফাইভারের কাজ পাওয়ার একটি উপায়। সঠিকভাবে প্রোফাইল তৈরীর ক্ষেত্রে আগে একটি ফাইভারে একাউন্ট খুলুন। এবং যথাযথ ভাবে আপনার সঠিক ছবি দিন। 


কোনো প্রকার চশমা যুক্ত ছবি ব্যবহার করবেন না। আপনার মুখমন্ডলটি পরিষ্কার ভাবে দেখা যায় মত একটি ছবি দিন যাতে আকর্ষণীয় লাগে। এবং about সেকশনে গিয়ে আপনার সম্পর্কে আপনি যেই স্কিলটি জানেন সেই সম্পর্কে ভালো করে লিখুন। 


যাতে করে আপনার সম্পর্কে একটি ভাল ধারনা হয় ক্লাইন্টের। এবং আপনার সম্পর্কে পড়ে বাইয়ার ইমপ্রেস হয়। এটি প্রথম কাজ। 

গিগ টাইটেল ও ডেসক্রিপশন


ফাইভারে কাজ পাওয়ার অন্যতম একটি উপায় হচ্ছে গিগ তৈরী করা। গিগটি এমন ভাবে তৈরী করতে হবে যেন বায়ার আপনার গিগের ডেসক্রিপশন টি পড়ে আপনার সেবা সম্পর্কে ভাল একটি ধারণা সে পায়। 


কারণ একজন বায়ার আপনাকে কাজ দেওয়ার জন্যে আগে ভালো করে আপনার সেবা সম্পর্কে পুঙ্কানুপুঙ্খ ভাবে পরীক্ষা করে দেখে। আর যদি আপনি আপনার description অংশে ভাল করে তার প্রয়োজনীয়তা গুলি তুলে ধরতে পারেন এক্সপার্ট দের মত  তাহলে আপনাকে অর্ডার দিতে সে বাধ্য। 


তবে বায়ারদের নজরে আসে এমন ভাবে আপনাকে fiverr Gig তৈরী করতে হবে। সেক্ষেত্রে Bold ,Underline,List ও Highlight গুলি ভাল করে ফরমেটিং করুন। এবং বায়ারের কাছে একটু বেশি গ্রহণযোগ্য হিসেবে আপনার মূল সেবার সাথে কিছু অতিরিক্ত বিষয় গিফট দেওয়ার চেষ্টা করুন।  

দর্শনীয় এবং অপ্টিমাইজেবল গিগ টাইটেল 


এখানে গিগ টাইটেল অপ্টিমাইজ করাটা বেশি জরুরি। আপনি কি কাজ করবেন বা আপনার ফাইভারে পেশা কি তা আপনার দর্শনীয় টাইটেলের মধ্যে থাকতে হবে। 


এবং এমন ভাবে টাইটেল তৈরী করতে হবে যাতে আপনার টাইটেল টি দেখতে সুন্দর হয় আবার শর্ট হয় এবং ওই টাইটেলে আপনার পেশাটি ও ফুটে উঠে। সেই ভাবে অফটিমাইজ করতে হবে। যেমন মানুষ আপনার পেশা অনুযায়ী কি দিয়ে সার্চ করে সেটি পরিলক্ষিত করুন। 


এবং সেই প্রকারে আপনি keyword দিয়ে অপ্টিমাইজ করে আপনার গিগ টাইটেল টি সাজাতে হবে। যেমন একটি উদাহরণ দেয়া যাক, আপনি ওয়েব ডিজাইন এর কাজ করেন এখন আপনার গিগ টাইটেলে যদি গ্রাফিক ডিজাইনের কিওয়ার্ড থাকে, তাহলে কি হবে?


 আবার এমন কিওয়ার্ড থাকতে হবে যাতে ওয়েব ডিজাইনের কিওয়ার্ড থাকে। যেন খুব সহজে শর্ট এই গিগ দেখে আপনার পেশা সম্পর্কে জানতে পারে এবং আপনার প্রোফাইল বা আপনার সম্পর্কে সে জানার জন্যে আগ্রহ প্রকাশ করে।  


আর ও পড়ুন ঃ

শরীর সুস্থ রাখার জন্য ব্যায়াম এবং শরীর সুস্থ রাখার প্রয়োজনীয়তা কি ?

ট্যাগ ও ডেসক্রিপশন এ সেরা ও সঠিক কিওয়ার্ড ব্যবহার

এখানে তিনটি বিষয় হাইলাইট করা হয়েছে যেমন ট্যাগ,ডেসক্রিপশন এবং সেরা ও সঠিক কিওয়ার্ড ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে। এই তিনটি বিষয় আপনার গিগ প্রচারের জন্যে খুব বেশি উপকারী। 


আপনার ডেস্ক্রিপশনে আপনার পেশা অনুযায়ী এমন ট্যাগ ব্যবহার করুন যাতে সেরা এবং সঠিক কিওয়ার্ড থাকে। এবং সার্চ করলে যেন আপনাকে পাওয়া যায়। এবং সঠিক কিওয়ার্ড নির্বাচন করুন আপনার স্কিল রিলেটেড। 


যেগুলিতে মানুষের খুব চাহিদা আছে। কিন্তু লো কম্পিটিটর। আপনার ওই কিওয়ার্ড গুলি ট্যাগ আকারে আপনার ডেস্ক্রিপশনে প্লেস করুন। তাহলে ওই কিওয়ার্ড গুলি মানুষ সার্চ করলে ই আপনাকে পাবে অনায়াসে। 


কিছু কিওয়ার্ড খুজার ধারণা দেওয়া যাক। যেমন দেখবেন আপনার পেশা হচ্ছে Web Design। টিক একই ভাবে কেউ যদি Web Design দিয়ে সার্চ করে থাকে। 


তাহলে দেখবেন কিছু কিওয়ার্ড সার্চ রেজাল্টে সাজেস্ট করছে। আপনি চাইলে সেই কিওয়ার্ড গুলি নিয়ে আপনার ডিস্প্রিপ্শনে প্লেস করতে পারেন। ওই সাজেস্টেড কিওয়ার্ড গুলিও মানুষ গুগলে এসে সার্চ করে থাকে। 

সোশ্যাল মিডিয়াতে গিগ মার্কেটিং 


মার্কেটিং বলতে আসলে প্রচার কে বুজায়। যার যত বেশি প্রচার তার ততবেশি সম্মান ও উপার্জন। তবে এখন অনলাইন জগতে অনেক সোশ্যাল মিডিয়া রয়েছে যেখানে প্রচার করা খুব সহজ।

 এবং ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় হিসেবে এটি ও একটি অন্যতম মাধ্যম। 


ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায়


যেমন আপনি ফেইসবুক ,টুইটার,লিঙ্কডিন,ইনস্টাগ্রাম এবং পিন্টারেস্ট আরো অনেক সোশ্যাল মিডিয়া রয়েছে সেখানে আপনার গিগ লিংক টি আপনি শেয়ার করার মাধ্যমে ভিজিটর আনতে পারেন। 


আরো অনেক প্রচারে মাধ্যম রয়েছে। তারমধ্যে ব্লগিং করেও আপনি আপনার গিগ প্রচার করতে পারেন। ধরুন আপনার ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে ভাল কাজ জানেন। 


সেক্ষেত্রে আপনি আপনার ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে একটি ব্লগ লিখে সেখানে আপনার ফাইভারের গিগ লিংকটি যুক্ত করে দিয়ে ও প্রচার করতে পারেন। সেক্ষত্রে আপনার একটি ব্লগ সাইট এর প্রযোজন হবে। 

সময় দেওয়া  বা অনলাইনে থাকা


ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় হিসেবে বেশিরভাগ সময় আপনাকে অনলাইনে সময় দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। সময় দেওয়া মানে হলো অনলাইনে থাকা। সর্বোচ্চ সময় আপনাকে অনলাইনে থাকতে হবে। 


কারণ হলো সারা বিশ্বে এই ফাইভারের বায়ার থাকে। তাই তারা যেকোনো সময়  আপনার প্রোফাইল পড়ে বা আপনার গিগ তাদের ভালো লাগলে আপনাকে যেকোনো সময় নক দিতে পারেন।


আর সেক্ষেত্রে আপনার যদি কোনো সারা না পাই বা উত্তর না পাই, তাহলে আপনি কাজ হারাতে পারেন। কারণ ফাইভারে রেসপন্স টাইম প্রদর্শন করা হয়।


এটি ফাইভারের একটি সিস্টেম। তাই সর্বোচ্চ টাইম দেওয়ার চেষ্টা করুন। যারা নতুন হিসেবে ফাইভারে কাজ করার জন্যে চাচ্ছেন তাদের জন্যে এটি বেশি জরুরি। 

স্কিল টেস্ট দেয়া


ফাইভারে স্কিল টেস্ট নাম একটি অপশন থাকে বা ফিচার থাকে। এটি আপনার যেই পেশা সেই পেশার উপর ভিত্তি করে আপনার কাছে কিছু প্রশ্ন করে থাকে। এবং সেইগুলিতে আপনি যত বেশি মার্ক পাবেন সেটি প্রদর্শন করবে। 


আপনি কতবেশি এক্সপার্ট সেই বিষয়ে আপনার গুরুত্ব বাড়িয়ে তুলে। এবং এই স্কিল টেস্ট যদি ভালো হয় তাহলে আপনার গিগ এর জন্যে খুব একটি ভাল দিক।

কাজের কোয়ালিটি ও অন-টাইম ডেলিভারি


দেখুন আপনি কত ভাল কাজ জানেন তা কিন্তু আপনার কাজের কোয়ালিটি হিসেবে বিবেচিত হয়। আপনার কাজের কোয়ালিটি যতবেশি ভাল হবে আপনার জন্যে ততবেশি উত্তম। 


যেন তেন কাজ বুজিয়ে দেওয়ার জন্যে চেষ্টা করবেন না। একটু ভাল করে কোয়ালিটি ফুল কাজ দেওয়ার চেষ্টা করুন তাতে আপনার কাছথেকে বায়ার দ্বিতীয় বার আর চলে যাবে না। 


এবং আরেকটি হলো অন-টাইম ডেলিভারি দেওয়া। কারণ যারা তাদের কাজকে সময়ের সাথে গুরুত্ব দেই তারা কিন্তু খুব মর্যাদা সম্পন্ন মানুষ। 


বায়ার তাদের খুঁজে যারা কথার সাথে কাজের মিল রাখে এবং টিক বরাবর কাজ ডেলিভারি দেয়। এতে খুব খুশি হয়ে বায়ার আপনাকে টিপস ও দিতে পারেন। 

ফাইভার ফোরাম ভিজিটিং 


ফাইভার ফোরাম ভিজিটিং করা ও যুক্ত থাকা একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার এর জন্যে কাজ পাওয়ার একটি গোপন মাধ্যম। ফাইভারের নিজস্ব ফোরাম রয়েছে যেখানে ফাইভারের টপ রেটেড সেলার রা তাদের নিজস্ব মতামত শেয়ার করে থাকেন।


এবং সেগুলিতে যুক্ত থেকে আপনি পড়লে বা সময় দিলে আপনার জন্যে একটি ভাল দিক হতে পারে। এবং আপনার সমস্যা সম্পর্কে সেখানে শেয়ার করলে ও আপনাকে তারা একটি ভাল ধারণা দেবে। এইভাবে আপনার ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় কে আরো দৃঢ় করতে পারেন। 

শেষ কথা 


ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় সম্পর্কে অনেক কথা এবং অনেক টপিক সম্পর্কে বলা হয়েছে। আপনি যদি সেইসব কিছু পালন করেন তাহলে অবশ্যই ফাইভার কাজ পাবেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই।


তবে এই ক্ষেত্রে খুব তাড়াতাড়ি কাজ করার কোনো প্রয়োজন নেই। দৈর্য ধারণ করে ধীরে ধীরে একেকটি কাজ সম্পন্ন করুন তাহলে আপনার সাকসেস হবে অবশ্যই। 



এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সবারজন্যে.কম এর নীতিমালা মেনে এ কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১